1. adammalek21@gmail.com : News Desk : News Desk
  2. rashad.vai@gmail.com : cp :
বৃহস্পতিবার, ০৬ অগাস্ট ২০২০, ১২:৩৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
মানবতার কল্যানে আদর্শ মানব কল্যান সংগঠন লক্ষ্মীপুরে প্রবাসী পরিবারের উপর সন্ত্রাসী হামলায় আহত -২, ঘর-বাড়ী ভাংচুর প্রতিপক্ষের ষড়যন্ত্রের জালে দিশেহারা রুবেলের পরিবারবর্গ লক্ষ্মীপুরে সেচ্ছাসেবক লীগ নেতার মুক্তি দাবীতে আল্টিমেটাম দিয়ে মানববন্ধন লক্ষ্মীপুরের মজুচৌধুরী হাটের ফেরীঘাট ও লঞ্চ ঘাট এর নতুন ইজারা পেলেন বাবুল ছৈয়াল হিরামনি ধর্ষণ ও হত্যার বিচারের দাবিতে মানববন্ধন শ্রীনগরে বেদে ও দুঃস্থদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ দৈনিক নতুন দিন- এর কমলগঞ্জ প্রতিনিধি করোণা আক্রান্ত সিরাজদিখানে ত্রান বিতরণে স্বজনপ্রীতির প্রতিবাদ করায় ইউপি সদস্যের মামলা কালীগঞ্জে দুলছে পাকা ধান চিন্তিত কৃষকের মন

বিশিষ্ট ব্যসায়ী মিজানুর রহমানএকজন পরিচ্ছন্ন সমাজ সেবক

  • সর্বশেষ আপডেট : রবিবার, ৫ জুলাই, ২০২০
  • ৩১০ জন সংবাদটি পড়েছেন


ডালিম কুমার দাস টিটু : লক্ষ্মীপুর জেলার , কমলনগর উপজেলার ৮নং চর কাদিরা ইউনিয়ন লক্ষ্মীপুর জেলার একটি ঐতিহ্যবাহী ইউনিয়ন পরিষদ হিসেবে পরিচিত। এই ইউনিয়নটির লক্ষ্মীপুর সবছেয়ে বড় দিক হল এটি জেলার পূর্বাঞ্চলের সর্বশেষ ইউনিয়ন । লক্ষ্মীপুর এর বর্ডার ইউনিয়ন এটি। এই ইউনিয়নে জন্ম নিয়েছেন অনেক গুনিজনরা । একটা সময় যদিও এই ইউনিয়নটি কিছুটা পিছিয়ে পড়া ছিলো কিন্তু বর্তমানে শিক্ষা ,সংষ্কৃতি, ধর্মীয় ,এবং খেলাধুলা সহ বিভিন্ন দিকে এগিয়ে রয়েছে এই ইউনিয়ন। তবে রাস্তা ঘাট এর পরিস্থিতি এখনও অনেকটা জরাজীর্ণ অবস্থায় আছে। কিন্তু এমন কিছু লোক আছেন যারা স্বার্থ ছাড়া এলাকার সার্বিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখেন তাদের মধ্যে একজন হলেন বিশিষ্ট ব্যাবসায়ী , সমাজ সেবক মিজানুর রহমান ।
নাম মিজানুর রহমান , জন্ম ৮ নং চরকাদিরা ইউনিয়নের চরবসু গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে। পিতা মো খুরশিদ আলম , মাতা মালেকা বানু । ছাত্র জীবন থেকে সমাজ সেবা মুলক কাজ এবং বিএনপির রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত হন। তিনি ক্লিনইমেজের একজন রাজনীতিবীদ। বর্তমানে তিনি ৮ নং চরকাদিরা ইউনিয়নের যুবদলের সিনিয়র সহ-সভাপতির দায়িত্বে আছেন এবং কমলনগর উপজেলা কৃষকদলের সাংগঠনিক পদ প্রত্যাসী । জানাযায় তিনি একজন ভালো মানুষ এবং দলে থেকে কখনো কোন রকম দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া যায়নি । তাই দলের উপজেলা পর্যায়ের সর্বোচ্চ নেতৃবৃন্দ তাকে এই পদের যোগ্য মনে করে তাকে দায়িত্ব দিয়েছেন । দায়িত্বে থাকা অবস্থায় কখনো তার বিরুদ্ধে অনৈতিক কোন কর্মকান্ডের অভিযোগ পাওয়া যায়নি এমনটাই জানালেন বিএনপির কিছু সিনিয়র নেতা। তিনি কখনো পদের ক্ষমতা এবং দলের ক্ষমতা দেখাননা । কারন তিনি মনে করেন যেকোন জায়গায় দায়িত্বে থ্কলে সেই দায়িত্বের সঠিক ব্যবহার করা উচিৎ। কিন্তু তা না হওয়ায় মনের কষ্টে মৌখীক ভাবে নীজ থেকে পদত্যাগ করলেন তিনি । তিনি বলেন , রাজনীতি যদি এলাকার গরিব দুঃখী মানুষের জন্য কাজ করতে না পারি তাহলে এই রাজনীতি করে কি লাভ? বর্তমানে করোনা মহামারিতে নিজ উদ্যেগে মিজানুর রহমান সামর্থ্য অনুযায়ী এলাকার গরিব মানুষের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরন করেছেন । এছাড়াও প্রবাসী বন্ধু সহ বিভিন্ন প্রভাবশালী ব্যাক্তিদের কাছ থেকে এলাকার মানুষের জন্য ত্রাণ সামগ্রী এনে দিয়েছেন । তিনি ২০১০ সালে চরবসু আইডিয়াল স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন । চরবসুর মেহনতি মানুষের জন্য তিনি চর বসুর হাট বাজারের সুবর্ণচর বর্ডার থেকে বটতলি বাজার পর্যন্ত জাঁজমারা চাঁইয়াখালি ব্রিজ এর এই কাঁচা রাস্তাটির দীর্ঘ চল্লিশ বছর যাবত চলাচলের অনুপযোগী। এ নিয়ে তিনি দফায় দফায় বর্তমান সাংসদ মেজর মন্নান ,উপজেলা চেয়ারম্যান মেজবাহ উদ্দিন বাপ্পি এবং ভাইস চেয়ারম্যান ওমর ফারুক সাগর এর সাথে কথা বলেছেন । এবং তারা তার কথায় আশ্বাস দিয়েছিলেন । এর মধ্যে তিনি কাাঁচা রাস্তা পাকা করার দাবিতে এলাকার লোকজনকে সাথে নিয়ে চরবসু বাজারে এক বিশাল মানব বন্ধন করেন। যেখানে উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়ার কর্মীরা । এছাড়াও তার সবছেয়ে বড় ইচ্ছা তিনি নিজ এলাকায় বেকারত্বেও অভাব দুর করতে কিছু কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করবেন বলে তিনি গনমাধ্যম কে জানান । মিজানুর রহমান বিএনপি সমর্থিত ব্যাক্তি হলেও তার মধ্যে কখনো দলিয় শত্রæতা নাই তার সাথে অন্য দল নিজ দল প্রত্যেকের সাথে শু-সম্পর্ক বিদ্যমান । দল মত নির্বিশেষে প্রত্যেকে তাকে খুব ভালোবাসে এবং ভালোবেসে তাকে বলে মিজান আমাদের কমলনগর এর গর্ব। তিনি বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সপিংমল যমুনা ফিউচার পার্ক এর একজন সফল ব্যবসায়ী যা কমলনগর বাসীর জন্য অনেক গর্বের। ক্লিনইমেজের এই রাজনৈতিক নেতা বিশিষ্ট ব্যসায়ী মিজানুর রহমান দল মত নির্বিশেষে প্রত্যেক মানুষকে সম্মান করেন এবং প্রত্যেক মানুষকে মুল্যায়ন করেন ।মিজানুর রহমান একজন ভালো সংগঠক তিনি ক্রীড়াতেও ভালো ভূমিকা রাখেন । এলাকায় যখন ছেলেরা খেলাধুলার আয়োজন করে তিনি কখনো তাদের নিরুৎসাহ করেননা কারন তিনি মনে করেন এরা যদি খেলাধুলার প্রতি মনোযোগী হয় তাহলে মাধক থেকে এরা দুরে থাকবে তাই সবসময় এলাকার ছাত্র ও যুবকদেরকে খেলাধুলার প্রতি উৎসাহ এবং ভালো কাজের প্রতি অনুপ্রেরণা দিয়ে থাকেন ।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় আসলেই মিজানুর রহমান একজন সৎ এবং সমাজসেবী মানুষ। ইউনিয়নের উন্নয়নের বিষয়ে মিজানুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন , আমাদের এই চরবসু এলাকাটি অনেক পরিচ্ছন্ন এলাকা । আমার এলাকার সাধারণ জনগনকে সাথে নিয়ে আমি ইউনিয়নের উন্নয়ন মুলক কাজে এগিয়ে যেতে চাই । তিনি দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, আমার এই চরবসু এলাকায় প্রায় ৬ কিলোমিটার রাস্তা দীর্ঘ ৪০ বছর যাবৎ জরাজীর্ণ অবস্থায় পড়ে আছে কত মেম্বার কত চেয়ারম্যান দায়িত্বে ছিলেন কিন্তু সুবর্ণচর বর্ডার থেকে বটতলি বাজার পর্যন্ত এই রাস্তাটি কেউ যেন দেখার নাই । এছাড়াও বিভিন্ন রকম উন্নয়নের কাজ চলছে । আমি আমার এলাকার সাধারণ জনগনের পাশে আছি এবং পাশে থাকবো । গরিব – দুঃখি মেহনতি মানুষের পাশে থেকে আজীবন তাদের সেবা করে যাবো ইনশাল্লাহ ।

অনুগ্রহ করে আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© ২০২০ চলতিপত্র - সম্পাদক কর্তৃক সর্বসত্ত্ব সংরিক্ষত
Theme Customized By BreakingNews